ফটিকছড়ির ৯টি সহ ৩০ টি কওমী মাদ্রাসাসার ব্যাংক হিসাব চেয়েছে আর্থিক গোয়েন্দা সংস্থা

প্রকাশিত: ১১:৫৬ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৫, ২০২১ | আপডেট: ১১:৫৬:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৫, ২০২১

আলমগীর ইসলামাবাদী”চট্টগ্রাম জেলা প্রতিনিধিঃ- দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী বড় মাদ্রাসা, জামিয়া ইসলামিয়া জমিরীয়া পটিয়া মাদ্রাসা, জামিয়া ইসলামিয়া আজিজুল উলুম বাবুনগর মাদ্রাসা, জামিয়া আরাবিয়া নছিরুল ইসলাম নাজিরহাট বড় মাদ্রাসা, হামিউস সুন্নাহ মেখল মাদ্রাসা, জামিয়া ইসলামিয়া ক্বাসেমুল উলুম চারিয়া মাদ্রাসা, জামিয়া হামিদিয়া নাছেরুল ইসলাম ফতেহপুর মাদ্রাসাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গার প্রায় ৩০টি মাদ্রাসার ব্যাংক হিসাবের তথ্য চেয়েছে দেশের কেন্দ্রীয় আর্থিক গোয়েন্দা সংস্থা বাংলাদেশ ফিন্যানসিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)।

সরকারের একটি সংস্থার চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে গত বুধবার এসব হিসাব তলব করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিএফআইইউর দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা। আগামী পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে এসব হিসাবের বিস্তারিত তথ্য জানতে চাওয়া হয়েছে।

এরমধ্যে ফটিকছড়ির যেসব মাদ্রাসার ব্যাংক হিসাব তলব করা হয়েছে সেগুলো হলো- জামিয়া ইসলামিয়া আজিজুল উলুম বাবুনগর মাদ্রাসা, আল জামেয়াতুল আরাবিয়া নছিরুল ইসলাম নাজিরহাট বড় মাদ্রাসা, আল-জামিয়াতুল কোরআনিয়া তালিমুদ্দিন মাদ্রাসা হেফজখানা ও এতিমখানা, জামিয়া ইসলামিয়া এমদাদুল ইসলাম কাজিরহাট মাদ্রাসা, পশ্চিম ভূজপুর আল মাহাদুল ইসলামী বালক-বালিকা মাদ্রাসা, জাফতনগর হাফেজুল উলুম মাদ্রাসা ও এতিমখানা, উত্তর নিশ্চিন্তাপুর তালীমুল কুরআন বালক-বালিকা মাদ্রাসা, উত্তর বারমাসিয়া হাফেজুল উলুম ইসলামিয়া মাদ্রাসা ও দাঁতমারা তালিমুল কোরআন ইসলামিয়া মাদ্রাসা।

সূত্র জানায়, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফর ঘিরে গত ২৬ মার্চ থেকে দেশজুড়ে হেফাজতকর্মীদের সহিংসতায় ১৩ জন মারা যাওয়ার পাশাপাশি অসংখ্য মানুষ আহত হয়। এর পরই সরকারি একটি সংস্থার নির্দেশে বিএফআইইউ এসব মাদ্রাসাগুলোর ব্যাংক হিসাব তলব করে। মাদরাসাগুলোর অর্থের উৎস কী, তা জানার জন্যই এসব হিসাব তলবের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।