২০ কোটি টাকা আমরা খেয়ে ফেলিনি: ঢামেক পরিচালক

প্রকাশিত: ১১:১৯ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১, ২০২০

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হিসাব অনুযায়ী করোনা চিকিৎসায় নিয়োজিত সেখানকার চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের দুই মাসে ব্যয় এক লাখ টাকা৷ এটা থাকা-খাওয়া এবং যানবাহনের খরচ৷

তারা দুই মাসের এই খরচ মেটাতে ২০ কোটি টাকা বরাদ্দ পেয়েছে৷ কিন্তু এই খরচ নিয়ে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী প্রশ্ন তুলেছেন৷ বিশ্লেষকেরা বলছেন, শুধু ঢাকা মেডিকেল নয়, এর সাথে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ও জড়িত৷ প্রশ্ন উঠেছে মন্ত্রণালয় একে ‘ত্রুটিপূর্ণ’ বলেও অনুমোদন দিলো কীভাবে? খবর- ডয়েচে ভেলের।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালকে মে-জুন মাসের জন্য এই বরাদ্দ দেয়া হয়েছে৷ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের পর অর্থ মন্ত্রণালয়ও এই বরাদ্দ পাশ করেছে৷ আর তা সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ায় এখন হই-চই শুরু হয়েছে৷ ঢাকা মেডিকেল এর ভবন-২ ও শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইন্সটিউটের করোনা ইউনিটের জন্য চিকিৎসক , স্বাস্থ্যকর্মী এবং অন্যান্য কর্মচারীদের জন্য এই খরচ ধরা হয়েছে৷

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সোমবার জাতীয় সংসদে এই খরচ নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, ‘‘এক মাসে ২০ কোটি টাকা খাবারের বিল, এটি অস্বাভাবিকই মনে হচ্ছে৷ এটি আমরা পরীক্ষা করে দেখছি৷ এত অস্বাভাবিক কেন হবে? যদি কোনো অনিয়ম হয়, অবশ্যই আমরা ব্যবস্থা নেবো৷’’

অবশ্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একে এম নাসিরউদ্দিন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এই টাকা আমরা বরাদ্দ পেয়েছি দুই মাসের খাবার, যানবাহন, হোটেল ভাড়ার জন্য৷ এখনো খরচ হয়নি৷ আমরা বিল পেলে সেই অনুযায়ী টাকা পরিশোধ করব৷ আমরা ২০ কোটি টাকা খেয়ে ফেলেছি বলে প্রোপাগান্ডা চালানো হচ্ছে৷ বিল কম হলে টাকা সরকারি কোষাগারে থেকে যাবে৷’’

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও অর্থ মন্ত্রণালয় বাজেট দেখেই পাশ করেছে৷ কোনো অসঙ্গতি থাকলে তারা তো অনুমোদন দিত না বলে দাবী করেন পরিচালক৷

ঢাকা মেডিকেলের তথ্য অনুযায়ী সেখানে এখন ৭০০ করোনা রোগী আছেন৷ করোনা চিকিৎসায় এখন তাদের মোট দুই হাজার চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, অন্যান্য কর্মচারী ও আনসার কাজ করেন৷ তাদের প্রত্যেকের দিনে দুই বেলার খাবার ও সকালের নাস্তার খরচ ধরা হয়েছে ৫০০ টাকা৷ তাদের থাকার জন্য ৩০টি হোটেল ভাড়া করা হয়েছে৷ যার বেড ভাড়া ৫০০ থেকে সাড়ে চার হাজার টাকা৷ তাদের আনা নেয়ার জন্য যানবাহন ভাড়া করা হয়েছে ৷ এছাড়া চারটি ডাবল ডেকার বাসও ভাড়া করা হয়েছে৷ এইসব খরচ বাবদ ২০ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে৷ যে ৩০টি হোটেল ভাড়া করা হয়েছে তারমধ্যে রিজেন্সি ও লা-ভিঞ্চির মত হোটেলও আছে৷

হাসপাতালে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা সাত দিন দায়িত্ব পালনের পর ১৪ দিন কোয়ারান্টিনে থাকেন৷ সুস্থ থাকলে পরের সাত দিন তারা বাসায় থাকেন৷ যারা আক্রান্ত হন তাদের চিকিৎসা দেয়া হয়৷ ২১ দিনের থাকা খাওয়া এবং যানবাহন সবই হাসপাতালের ব্যবস্থাপনায় হয়৷ এই সবকিছুর খরচই এর মধ্যে বলে জানায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ৷

পরিচালক বলেন,‘‘আমাদের মাসে ৫০ লাখ টাকা যায় যানবাহনে, হোটেল ভাড়া আছে৷ খাবার খরচ আছে৷ পরিচ্ছন্নতার খরচ আছে৷ আমরা রেলওয়ে হাসপাতালের কোভিড ইউনিটও চালাই৷ ২০ কোটি টাকার মধ্যে এক কোটি টাকা ওই হাসপাতালের জন্য৷ আমরা যে ব্যয় করেছি তা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী করেছি৷’’

ঢাকা মেডিকেলে কোভিড চিকিৎসার শুরুতে এক কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়৷ এর বাইরে আর কোনো টাকা এখনো খরচ করা হয়নি বলে কর্তৃপক্ষ দাবি করে৷ এখন বিল তৈর হচ্ছে৷ নতুন ২০ কোটি টাকা বরাদ্দ থেকে সেই বিল পরিশোধ হবে৷

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাসিরউদ্দিন বলেন,‘‘এটা অংকের ব্যাপার৷ যোগ, বিয়োগ, ভাগ করলেই বোঝা যাবে৷ রাখঢাকের কিছু নাই৷’’ তার কথা অনুযায়ী ২০ কোটি টাকাকে ২০০০ চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী দিয়ে ভাগ করলে জনপ্রতি দুই মাসে খরচ হয় এক লাখ টাকা৷ আর মাসে ৫০ হাজার টাকা৷ প্রতিদিন গড়ে মাথাপিছু খরচ এক হাজার ৬৬৬ টাকা৷

Facebook Comments